করিম বেনজেমা : ওয়ান অব দ্যা মোস্ট আন্ডাররেটেড

বর্তমান ফুটবল বিশ্বের আন্ডাররেটেড ফুটবলারদের নাম নিতে গেলে সবার প্রথম সারিতে আসবে করিম বেনজেমার নাম। অনেকটা নীরবে নীরবেই দলের হয়ে সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ণ কাজ, গোল স্কোরিংটা করে থাকেন। বর্তমান, রিয়াল মাদ্রিদের আক্রমণভাগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বেনজেমা। ২০০৯ সালে থেকে রিয়াল মাদ্রিদে নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে যাচ্ছেন বেনজেমা, তবুও এক প্রকার আড়ালেই থেকে যান তিনি।

তবে, নিজের আন্তর্জাতিক ফুটবলীয় ক্যারিয়ারে এবং ব্যাক্তিগত জীবনে বেশকিছু চড়াই-উতরাই পার করেই আজকের করিম বেনজেমা হতে পেরেছেন। করিম বেনজেমার জন্ম ফ্রান্সের লিও শহরে হলেও তারা বাবা মা আলজেরিয়া থেকে আসা শরণার্থী হিসেবে ফ্রান্সে আশ্রয় গ্রহণ করে।

করিম বেনজেমাঃ ওয়ান অব দ্যা মোস্ট আন্ডাররেটেড
অলিম্পিক লিও’র জার্সি গায়ে করিম বেনজেমা

 

বেনজেমা তার ফুটবলীয় ক্যারিয়ার শুরু করে স্থানীয় ক্লাব ব্রোন টেরাইলনে খেলার মাধ্যমে। ব্রোন টেরাইলনে খেলার সময়ে সে শহরের সবচেয়ে বড় ক্লাব, লিও’র অনুর্ধ্ব-১০ দলের বিপক্ষে তিনি জোড়া গোল করেন। এরপরেই, অলিম্পিক লিও ম্যানেজমেন্টের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বেনজেমা। এরপরেই, অলিম্পিক লিওর বয়সভিত্তিক দলে খেলা শুরু করেন বেনজেমা।

[ করিম বেনজেমা : ওয়ান অব দ্যা মোস্ট আন্ডাররেটেড ]

অনুর্ধ্ব-১৬ লেভেলে লিও’র হয়ে বেনজেমা মোট ৩৮টি গোল করেন। এরপরেই, বেনজেমাকে লিও’র সিনিওর দলের রিজার্ভ দলে রাখা হয় যে দল ফ্রান্সের একটি প্রীতি টুর্নামেন্ট খেলছিল এবং সে টুর্নামেন্টে বেনজেমা মোট ১০টি গোল করে গ্রুপ পর্ব শেষ করেন।

২০০৪ থেকে ২০০৯ পর্যন্ত বেনজেমা ফ্রান্সের দল অলিম্পিক লিওতে খেলেছেন সিনিওর দলে। কিন্তু, এর পাশাপাশি তিনি লিও ‘বি’ দলেও খেলেছিলেন। লিও ‘বি’ দলের হয়ে তিনি ২০ ম্যাচে ১৫ গোল করেছেন এবং লিও মূল দলের হয়ে তিনি ১১২ ম্যাচে মোট ৪৩ গোল করেছেন। ২০০৮ সালে অলিম্পিক লিওর ফরাসি লীগ জয়ে বেনজেমা বহু গুরুত্বপুর্ণ অবদান রাখেন।লিওর হয়ে ৪টি লিগ ওয়ান, ৪টি ফ্রেঞ্চ সুপার কাপ এবং ১ বার ফ্রেঞ্চ কাপের শিরোপা জয় করেন তিনি।যার ফলে, ২০০৯ সালের দ্বিতীয় ট্রান্সফার উইন্ডোতে তিনি রিয়াল মাদ্রিদে যোগদান করেন।

আলজেরিয়ান বংশোদ্ভূত, মুসলিম পরিচয় এবং ভালো ফুটবলার,  এসব মিলিয়ে ফরাসী তারকা জিনেদিন জিদানের সাথেই বেশি তুলনা করা হতো করিম বেনজেমাকে। কিন্তু, এই তুলনা হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ২০০৮ সালে গণমাধ্যমে  তিনি বলেন, ” জিদানের সাথে তুলনা হওয়াটাই আমার জন্য বড় ব্যাপার। আমরা সম্পূর্ণ আলাদা ধরণের ফুটবলার।”

বেনজেমাকে দলে পেতে রিয়াল মাদ্রিদকে মোট ৩৫ মিলিয়ন ইউরো খরচ করতে হয়েছিল। তবে, শুরুর দিকে দলে রাউল এবং ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর মতো তারকাদের খ্যাতির সামনে খানিকটা অগোচরেই ছিলেন বেনজেমা। তবুও, দিনের পর দিন নিজের ফুটবল শৈলীর মাধ্যমে বিশ্ব ফুটবলে নিজেকে মেলে ধরেছেন তিনি।

 

করিম বেনজেমাঃ ওয়ান অব দ্যা মোস্ট আন্ডাররেটেড
বার্সেলোনার বিপক্ষে গোল করার পর বেনজেমা

 

বিশেষ করে, ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো পরবর্তী সময়ে রিয়ালের আক্রমণভাগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন তিনি। এখন পর্যন্ত, রিয়াল মাদ্রিদের জার্সি গায়ে ২৯৯ গোল এবং ১৫২টি অ্যাসিস্ট করেছেন করিম বেনজেমা। এখন পর্যন্ত, রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে ২০টি ট্রফি জিতেছেন তিনি যার মধ্যে ৩টি লা লিগা, ২টি কোপা দেল রে এবং ৪টি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ট্রফি রয়েছে।

গেলো সিজনে, রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে সর্বোচ্চ ১৮ গোল করে রিয়াল মাদ্রিদকে লা লিগা ট্রফি জেতাতে অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। এই সিজনেও এখন পর্যন্ত, লা লিগার সর্বোচ্চ গোলদাতা তিনি।

নিজের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে নানারূপ উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে গেছে বেনজেমার।বিভিন্ন সময়ে, বিভিন্ন বিতর্কে জড়িয়েছেন কিংবা কখনো ফ্রান্স ফুটবল ফেডারেশনের সঙ্গে দ্বন্দে জড়িয়েছেন।

২০১৬ ইউরো থেকে বাদ পড়তে হয়েছিল ফ্রান্সের তারকা স্ট্রাইকার ফুটবলার করিম বেনজেমাকে। এ নিয়ে ফ্রেঞ্চ ফুটবল ফেডারেশন এক বিবৃতিতে জানিয়েছিল , “অনির্দিষ্টকালের জন্য ফ্রান্স জাতীয় দলের হয়ে খেলতে পারবেন না এই স্ট্রাইকার।”

এর ফলে, নিজের দেশে ২০১৬’র ইউরোতে খেলার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হন এ রিয়াল মাদ্রিদ তারকা। ৩৪ বছর বয়সী ফরাসি এ স্ট্রাইকার, এক সময়ের জাতীয় দলের সতীর্থ ম্যাথিউ ভালবুয়েনার একটি সেক্স টেপ নিয়ে বিতর্কে জড়ান। ভালবুয়েনার সেক্স টেপটি ব্ল্যাকমেইলারদের হাতে চলে যায় এবং তারা অর্থ দাবি করে।

 

করিম বেনজেমাঃ ওয়ান অব দ্যা মোস্ট আন্ডাররেটেড
২০২০ ইউরোতে বেনজেমা

 

ভিডিও টেপটি ফাঁস করে দেয়ার হুমকিও দেয়া হয়। যার ফলে, ভিডিও টেপ নিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ উঠে রিয়াল মাদ্রিদ স্ট্রাইকারের বিরুদ্ধে। ফ্রান্সের আদালতে এ নিয়ে মামলাও চলে বেনজেমার বিরুদ্ধে। তবে, প্রমাণের অভাবে সে মামলা থেকে বেকসুর খালাস পান বেনজেমা। করিম বেনজেমা ফ্রান্সের হয়ে ২০১০ এবং ২০১৪ বিশ্বকাপ খেললেও ২০১৬ ইউরো এবং ২০১৮ বিশ্বকাপে নিষেধাজ্ঞার কারণে খেলতে পারেননি।

তবে, ২০২০ ইউরোতে আবারো ফ্রান্সের জাতীয় দলে জার্সি গায়ে জড়ান বেনজেমা।শক্তিশালী পিএসজির বিপক্ষে তার ১৭ মিনিটের হ্যাটট্রিকে, উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে খেলা নিশ্চিত হয় রিয়াল মাদ্রিদের। তাই রোনালদো চলে যাওয়ার পর, ক্লাব ফুটবলে আবারো রিয়াল মাদ্রিদের উত্থানের গল্পের এক নায়ক হিসেবে করিম বেনজেমার নাম বলাই যেতে পারে।

আরও পড়ুন:

“করিম বেনজেমা : ওয়ান অব দ্যা মোস্ট আন্ডাররেটেড”-এ 1-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন