ক্রিকেট টুর্নামেন্টের মাঝে অধিনায়কত্বের পরিবর্তন এবারই প্রথম নয়

ক্রিকেট টুর্নামেন্টের মাঝে অধিনায়কত্বের পরিবর্তন এবারই প্রথম নয় !!!

ক্রিকেটকে বলা হয় , গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা। যেকোনো সময় যেকোনো কিছুই হতে পারে এ ক্রিকেট খেলায় ।  তবে শুধু মাঠের ভেতরের খেলায়ই নয় বরং, মাঝেমধ্যে মাঠের বাহিরের খেলাও জমে উঠে।  ক্রিকেট খেলাকে বরাবরই একটি টিম গেম বলা হয়।
ক্রিকেট দল কলকাতা নাইট রাইডার্সের ২০১৮ মৌসুমের প্রথম অধিনায়ক
দীনেশ কার্তিক

একটি ক্রিকেট দলে সব থেকে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে সে দলের অধিনায়ক। একটি ক্রিকেট ম্যাচে ব্যাটিং , বোলিং এবং ফিল্ডিং সব ক্ষেত্রেই অধিনায়কের ভূমিকা খুবই গুরত্বপুর্ণ।যার কারণে , একটি ক্রিকেট দলের মেরুদন্ড হিসেবে সে দলের অধিনায়ককেই বলা হয়ে থাকে।

তবে, কখনো কখনো ক্রিকেট দলের প্রয়োজনের স্বার্থে কোনো টুর্নামেন্টের মাঝপথে পরিবর্তন হয়েছে সে দলের অধিনায়কের। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট এবং ঘরোয়া ক্রিকেট, উভয় ক্ষেত্রেই একাধিক বার হয়েছে এমনটি।

[ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের মাঝে অধিনায়কত্বের পরিবর্তন এবারই প্রথম নয় ] 

কলকাতা নাইট রাইডার্স :

২০২০ আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্স [ Kolkata Knight Riders ] দলে টুর্নামেন্টের মাঝপথেই এসেছিল পরিবর্তন। আইপিএলের সেবারের আসরে , মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে ম্যাচের কিছু ঘন্টা আগে দলের অধিনায়কের পদ থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করেন সে সময়ের অধিনায়ক দীনেশ কার্তিক।
২০১৮ মৌসুমে দিল্লীর প্রথম অধিনায়ক
গৌতম গম্ভীর

তার পরিবর্তে দলের নতুন অধিনায়ক হিসেবে স্থলাভিষিক্ত হন ইংলিশ অধিনায়ক ওয়েন মরগান। সে টুর্নামেন্টে অধিনায়কত্ব ছাড়ার আগে ব্যাট হাতে বেশ খারাপ ফর্মে ছিলেন দীনেশ। অধিনায়কত্ব ছাড়ার আগে তিনি ৮ ম্যাচে মাত্র ১১২ রান করেছিলেন। যার কারণে, সে টুর্নামেন্টে ভালো ফর্মে থাকা ইংলিশ ব্যাটার ওয়েন মরগানকে দেওয়া হয় অধিনায়কত্বের দায়িত্ব।

দিল্লী ডেয়ারড্যাভিলসঃ আইপিএলে ২০০৮ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত দিল্লী ফ্র্যাঞ্চাইজির নাম ছিলো দিল্লী ডেয়ারডেভিলস। ২০১৮ সালে দিল্লী ডেয়ারডেভিলসের অধিনায়ক হিসেবে সর্বপ্রথম নির্বাচিত করা হয়েছিল গৌতম গম্ভীরকে।
তবে, টুর্নামেন্টের শুরু থেকে দলের  অবস্থা টেবিলের তলানিতে থাকার কারণে, দিল্লীর অধিনায়কত্ব ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন গৌতম। এরপর দিল্লীর দায়িত্ব দেওয়া হয় শ্রেয়াস আইয়ারকে।

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স [ Mumbai Indians ]:

২০১৩ সালে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সফলতম অধিনায়ক অস্ট্রেলিয়ার রিকি পন্টিংকে।

২০১৩ মৌসুমে মুম্বাইয়ের প্রথম অধিনায়ক
রিকি পন্টিং
তবে  , সে টুর্নামেন্টে রিকি পন্টিংয়ের ব্যাট হাতে খারাপ ফর্মের কারণে তাকে সরিয়ে নতুন অধিনায়ক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় রোহিত শর্মাকে।পরবর্তীতে, রোহিত শর্মার অধীনে সে বছর আইপিলের শিরোপা জেতে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স।
২০১৪ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলঃ ২০১৪ সালে , বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয় শ্রীলঙ্কা। সে বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কা দলের অধিনায়ক হিসেবে প্রথমে নির্বাচিত করা হয় দীনেশ চান্দিমালকে। তবে, পরবর্তীতে চান্দিমালের ব্যাটিং ফর্ম খারাপ থাকার কারণে, শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় পেসার লাসিথ মালিঙ্গাকে। টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেবারের আসর চ্যাম্পিয়ন হয় শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল।
২০১৪ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার প্রথম অধিনায়ক
দীনেশ চান্দিমাল

নিদাহাস ট্রফি :

২০১৮ সালে শ্রীলঙ্কার মাটিতে বাংলাদেশ ,ভারত এবং শ্রীলঙ্কাকে নিয়ে একটি ত্রিদেশীয় টি টোয়েন্টি সিরিজ অনুষ্ঠিত হয়। সে টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ টি টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক হিসেবে প্রথম নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে। তবে, সিরিজের প্রথমটা বাংলাদেশ দলের জন্য ভালো না হলে, দলের শক্তি এবং আত্মবিশ্বাস জোগাড় করার জন্য অধিনায়ক হিসেবে দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয় সাকিব আল হাসানকে। সে সিরিজের ফাইনালে খেলে বাংলাদেশ এবং অল্পের জন্য ভারতের কাছে হেরে সিরিজ হাতছাড়া করে তারা।
২০১৮ নিদাহাস ট্রফিতে বাংলাদেশের প্রথম অধিনায়ক
মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ

ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্স:

২০১২ বিপিএলে ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্সের অধিনায়ক ছিলেন মাশরাফি মোর্তজা। সে টুর্নামেন্টে হঠাৎ করে মাশরাফির হাত থেকে সরিয়ে ক্যাপ্টেন্সি দেওয়া হয় মাশরাফি বিন মোর্তজার হাতে।পরবর্তীতে মাশরাফির স্থলাভিষিক্ত অধিনায়ক আশরাফুলের উপর ম্যাচ ফিক্সিং এর অভিযোগ আনা হয়।যার পরিপ্রেক্ষিতে দীর্ঘদিন ক্রিকেট থেকে নির্বাসিত থাকতে হয় আশরাফুলকে।
২০১৩ বিপিএলে ঢাকার প্রথম অধিনায়ক
মাশরাফি মোর্তজা
চলমান বিপিএল টি টোয়েন্টি ২০২২ এ ফ্র‍্যাঞ্চাইজি চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সে হয়েছে অধিনায়কের পরিবর্তন। এই আসরের শুরুতে চট্টগ্রামের অধিনায়ক করা হয়েছিল অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজকে। তবে,  হঠাৎই টুর্নামেন্টের মাঝপথে এসে মিরাজকে সরিয়ে অধিনায়কত্বের দায়িত্ব দেওয়া হয় অভিজ্ঞ নাইম ইসলামকে।

মেহেদী হাসান মিরাজ [Mehedi Hasan Miraz ] এর এই অধিনায়কত্বের পরিবর্তন বিভিন্ন সময় বিভিন্ন গুঞ্জন এবং গুজবের জন্ম দিয়েছে। কেউ বলছে মৌসুমের শুরুতে চট্টগ্রামের হেড কোচ থাকা পল নিক্সনের সাথে তার দ্বন্দ্ব ছিলো।

২০২২ বিপিএলে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের প্রথম অধিনায়ক
মেহেদী হাসান মিরাজ।
আবার কখনো গুঞ্জন উঠেছে এ মৌসুমে হঠাৎ কাউন্টি দলের দায়িত্ব আসায় চট্টগ্রামের হেড কোচের দায়িত্ব ছাড়ার আগে তিনি চট্টগ্রাম টিম ম্যানেজমেন্টকে মিরাজের অধিনায়কত্ব তুলে নেয়ার প্রস্তাব দেন।
কেউ কেউ আবার বলছে দলে থাকা কোনো তরুণ ক্রিকেটারের সাথে বাক বিতন্ডার জেড়ে হাতাহাতি হওয়ার ঘটনায়, দলে বিশৃংখলতার কারণে মিরাজের কাছ থেকে কেড়ে নেয়া হয় অধিনায়কত্ব।
পরবর্তীতে অভিমানের জেড় ধরে মিরাজ এবারের বিপিএল না খেলার সিদ্ধান্ত নিলেও,  এক সময় টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে সমঝোতায় এসে এবারের আসরের বাকি ম্যাচগুলো খেলার সিদ্ধান্ত নেন ২০১৫ অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে উঠা বাংলাদেশ দলের এ অধিনায়ক।

“ক্রিকেট টুর্নামেন্টের মাঝে অধিনায়কত্বের পরিবর্তন এবারই প্রথম নয়”-এ 1-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন