টাইব্রেকারে ব্রাজিলের বিদায়, উরুগুয়ে সেমিফাইনালে

টাইব্রেকারে ব্রাজিলের বিদায়, উরুগুয়ে সেমিফাইনালে। পারলো না ব্রাজিল। প্রতিপক্ষের তুলনায় একজন বেশি নিয়েও কোপা আমেরিকার সেমিফাইনালে উঠতে পারলো না পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। টাইব্রেকারে তাদেরকে ৪-২ গোলে হারিয়ে উরুগুয়ে সেমিফাইনালে খেলা নিশ্চিত করেছে। নির্ধারিত সময়ের খেলা গোলশূন্য ছিল। সেমিফাইনালে উরুগুয়ে কলাম্বিয়ার মুখোমুখি হবে। অন্য সেমিতে আর্জেন্টিনা খেলবে কানাডার বিপক্ষে।

টাইব্রেকারে উরুগুয়ে প্রথম তিন শটে গোল করলেও ব্রাজিল তিন গোলের দুটোতে গোল করতে ব্যর্থ হয়।। এদের মিলিতাও প্রথম শটে লক্ষ্যভেদে ব্যর্থ হন। আন্দ্রেস পেরেইরা দ্বিতীয় শটে গোল করলও ডগলাস লুইস ব্যর্থ হন। আর তখনই ব্রাজিলের বিদায় অনেকটা নিশ্চিত হয়ে যায়। তবে উরুগুয়ে চতুর্থ শটে ব্যর্থ হলে ব্রাজিল কিছুটা আশাবাদী হয়ে ওঠে। কিন্তু উরুগুয়ের পঞ্চম শটে উগার্তে গোল করলে ব্রাজিলের সব শেষ হয়ে যায়।

টাইব্রেকারে ব্রাজিলের বিদায়, উরুগুয়ে সেমিফাইনালে

দলের অন্যতম তারকা নেইমার নেই। ভিনিসিয়াস জুনিয়র ছিলেন নির্ভরতার প্রতীক। কার্ডের খাড়ায় পড়ে তাকে ছাড়াই মাঠে নামতে হয়েছিল ব্রাজিলকে। তার পরিবর্তে তরুণ খেলোয়াড় এনড্রিককে নিয়ে একাদশ সাজিয়েছিল ব্রাজিল।

প্রথমার্ধে উভয় দলই মানসিকভাবে আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলেছে। শারীরিক নির্ভর খেলায় মনোযোগী ছিল উভয় দল। আক্রমণের দিকে মনোযোগী ছিল না কোনো দল। ফাউলের পরিবর্তে ফাউল করেছে। অবস্থা এত নাজুক ছিল যে, প্রথমার্ধে উভয় দল মাত্র একে অপরের পোস্ট লক্ষ্য করে ৯টি শট নিয়েছে। আর সেখানে ফাউলের সংখ্যা ছিল ১৮টি। সব মিলিয়ে ফাউল হয়েছে ৪১টি।

টাইব্রেকারে ব্রাজিলের বিদায়, উরুগুয়ে সেমিফাইনালে

দ্বিতীয় মিনিটে ব্রাজিলের জন্য আতঙ্ক ছড়িয়েছিল উরুগুয়ে। ডারউইন নুনেজ ডান দিক থেকে ঢুকে পড়ার চেষ্টা করেছিলেন। এর পরেই পেলেস্ট্রি বক্সে ঢুকে পড়েছিলেন। উভয় ক্ষেত্রে ব্রাজিলের রক্ষণভাগে দারুণভাবে দলকে বিপদ থেকে রক্ষা করেন।

এ্যাথলেটিক্স খেলার আইন কানুন । খেলাধুলার আইন
গুগল নিউজে আমাদের ফলো করুন

১৯ মিনিটের সময় পর পর দুটো কর্নার পেয়েছিল উরুগুয়ে। কিন্তু গোলের দেখা পায়নি তারা। ৩৪ মিনিটে আবার গোলের দারুণ সুযোগ পেয়েছিল উরুগুয়ে। কিন্তু ডারউইন নুনেজের হেড পোস্টের ওপর দিয়ে চলে যায়।

দ্বিতীয়ার্ধের শেষ সময়ে উরুগুয়ে বড় চাপের মধ্যে পড়েছিল। মাত্র তিন মিনিটের ব্যবধানে উরুগুয়ের নাহিতান নানদেজ লাল কার্ড দেখেন। ৭১ মিনিটে প্রথম এবং ৭৪ মিনিটে তিনি লাল কার্ড দেখলে উরুগুয়ে ১০ জনের দলে পরিণত হয়। রদ্রিগো ফাউল করেন তিনি। রেফারি ভিএআর চেক করার পর নাহিতানকে লাল কার্ড দেখান।

টাইব্রেকারে ব্রাজিলের বিদায়, উরুগুয়ে সেমিফাইনালে

ম্যাচের বয়স যখন এক ঘন্টা তখন ম্যাাচে ফাউলের সংখ্যা কোয়ার্টার সেঞ্চুরিতে পা রাখে। ফাউলে উরুগুয়ে অনেক অনেক এগিয়ে ছিল। ১৮টি ফাউল করেছিল উরুগুয়ে, আর ব্রাজিলে মাত্র সাতবার ফাউল করে।

একজন কম হয়ে যাওয়ায় বাকি সময় উরুগুয়ে খেলাকে নষ্ট করার চেষ্টা করেছে। খেলা নিয়ে যেতে চেয়েছে টাইব্রকারে। সময় নষ্ট করেছে। তাদের সে চেষ্টা সফলও হয়েছে।

আরো দেখুনঃ

Leave a Comment