মোহাম্মদ রিজওয়ান [ Mohammad Rizwan ] আন্ডারডগ থেকে সুপারস্টার হওয়ার এক হার না মানা গল্প

বর্তমান বিশ্ব ক্রিকেটের সেরা ব্যাটারদের মধ্যে এক জ্বলজ্বলে নক্ষত্র, মোহাম্মদ রিজওয়ান [ Mohammad Rizwan ]। এক সময়ের দলের অনিয়মিত খেলোয়াড় রিজওয়ান , এখন  পাকিস্তান দলের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। নিজের স্টাইলিশ ব্যাটিং নৈপুণ্য এবং ধারবাহিকতার মাধ্যমে রিজওয়ান করেছেন বিশ্বব্যাপী ভক্তদের হৃদয় জয়। কিন্তু, এতো সাফল্য মোটেও সহজ ছিলো না রিজওয়ানের জন্য। তাকে পাড়ি দিতে হয়েছে কঠিন গন্তব্য।

মোহাম্মদ রিজওয়ানঃ আন্ডারডগ থেকে সুপারস্টার হওয়ার এক হার না মানা গল্প
মোহাম্মদ রিজওয়ান

মোহাম্মদ রিজওয়ান ১৯৯২ সালের ১ জুন পাকিস্তানের পেশোয়াড়ে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি পাকিস্তানের একমাত্র উইকেটকিপার ব্যাটার যার টেস্ট ,ওয়ানডে এবং টি টোয়েন্টি তিনি ফরমেটেই সেঞ্চুরি রয়েছে।

২০১৪ সালে পাকিস্তানের ঘরোয়া টুর্নামেন্ট কয়েদ এ আজম ট্রফিতে ধারবাহিক ব্যাটিংয়ের প্রদর্শনের কারণে পাকিস্তান জাতীয় দলে তার ডাক পড়ে।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মোহাম্মদ রিজওয়ানের অভিষেক হয় ২০১৫ সালে, বাংলাদেশের বিপক্ষে। সে ম্যাচে, তিনি ৫৮ বলে ৬৭ রানের একটি চমৎকার ইনিংস খেলেন। যদিও,  বাংলাদেশের দারুণ ক্রিকেটের কারণে, পাকিস্তান সে ম্যাচ এমনকি সে ওয়ানডে সিরিজের একটি ম্যাচও জিততে পারেনি।

[ মোহাম্মদ রিজওয়ান : আন্ডারডগ থেকে সুপারস্টার হওয়ার এক হার না মানা গল্প ]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হওয়ার পর থেকেই রিজওয়ান, পাকিস্তান দলের ব্যাকআপ উইকেটকিপার হিসেবেই দলে সুযোগ পেতেন। কারণ, তখনকার পাকিস্তান দলের নিয়মিত উইকেট কিপার ছিলেন সরফরাজ আহমেদ।

মোহাম্মদ রিজওয়ানঃ আন্ডারডগ থেকে সুপারস্টার হওয়ার এক হার না মানা গল্প
নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ফিফটির পর ব্যাট দেখাচ্ছেন রিজওয়ান

২০১৫ সালে, মোহাম্মদ রিজওয়ান মোট ১৪টি আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছিলেন যেখানে তিনি ৩৬.৮৮ গড়ে মোট ৩৩২ রান করেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে একজন উদীয়মান খেলোয়াড় হিসেবে মোহাম্মদ রিজওয়ানের এই ব্যাটিং স্ট্যাট মোটেও মন্দ ছিলো না। ২০১৬ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে মোহাম্মদ রিজওয়ান মাত্র ১১ টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলার সু্যোগ পায় যেখানে, ১১ ম্যাচে ১৮.২৮ গড়ে মাত্র ১২৮ রান করেন।

মোহাম্মদ রিজওয়ানের টেস্ট অভিষেক হয় ২০১৬ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। সে ম্যাচে, ২ ইনিংস মিলিয়ে তিনি মাত্র ১৩ রান করেন। সে ম্যাচের পর তিনি দীর্ঘদিন আর পাকিস্তানের হয়ে টেস্ট খেলার সুযোগ হয়নি তার।

২০১৯ বিশ্বকাপের আগে আবু ধাবিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের আগে , তৎকালীন পাকিস্তান অধিনায়ক এবং উইকেটকিপার সরফরাজ আহমেদ ইঞ্জুরিতে পড়লে পাকিস্তান দলে উইকেটরক্ষক ব্যাটার হিসেবে সুযোগ পান রিজওয়ান। সে সিরিজে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তিনি মোট ২টি সেঞ্চুরি করেন। কিন্তু, তবুও পাকিস্তানের নিয়মিত অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ দলে ফিরলে ওয়ার্ল্ড কাপ খেলার সুযোগ পাননি রিজওয়ান।

মোহাম্মদ রিজওয়ানঃ আন্ডারডগ থেকে সুপারস্টার হওয়ার এক হার না মানা গল্প
আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম সেঞ্চুরির পর মোহাম্মদ রিজওয়ান

২০১৯ বিশ্বকাপে পাকিস্তান দলের বাজে  পারফর্মেন্সের কারণে পাকিস্তানের অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হয় সরফরাজ আহমেদকে। এরপর, নিজের খারাপ ফর্মের কারণে পাকিস্তান দল থেকে বাদ পড়েন সরফরাজ।

২০১৯ এর শেষের দিকে , অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে উইকেটকিপার ব্যাটার হিসেবে পুনরায় পাকিস্তান দলে সুযোগ পান, মোহাম্মদ রিজওয়ান। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ২ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ৪৪.২৫ গড়ে মোট ১৭৭ রান করেন যেখানে তিনি ৯৫ রানের একটি প্রাণবন্ত ইনিংসও খেলেন।

২০২০ এর নিউজিল্যন্ড সফরে টেস্ট ম্যাচে একটি ফিফটি করেন রিজওয়ান। টেস্ট সিরিজের পরের টি টোয়েন্টি সিরিজে পাকিস্তানের অধিনায়ক এবং টি টোয়েন্টি ওপেনার বাবর আজম ইনজুরিতে পড়লে সে সিরিজে ওপেনিংয়ে ব্যাট করার সুযোগ পান রিজওয়ান। সে সিরিজের তৃতীয় টি টোয়েন্টিতে ৮৯ রানের একটি ইনিংস খেলে পাকিস্তানকে হোয়াইটওয়াশের শঙ্কামুক্ত করেন রিজওয়ান।

মোহাম্মদ রিজওয়ানঃ আন্ডারডগ থেকে সুপারস্টার হওয়ার এক হার না মানা গল্প
পিএসএল ট্রফি হাতে মোহাম্মদ রিজওয়ান

২০২০ পাকিস্তান সুপার লিগে করাচি কিংসের হয়ে খেলেন রিজওয়ান। কিন্তু, পিএসএলের এক ম্যাচে মোহাম্মদ রিজওয়ান মূল একাদশে সুযোগ পাননি রিজওয়ান। তার দলে না থাকার কারণ সে দলের অধিনায়ক ইমাদ ওয়াসিমকে প্রেস কনফারেন্সে জিজ্ঞেস করা হলে ইমাদ বলেন, “রিজওয়ান দলে থাকার যোগ্য না দেখেই, তাকে দলে নেয়া হয়নি।

২০২১ সাল ছিলো, মোহাম্মদ রিজওয়ানের ক্রিকেটীয় ক্যারিয়ারের সবচেয়ে সুবর্ণ সময়। ২০২১ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ধারাবাহিকভাবে পাকিস্তানের হয়ে রানের বন্যা বইয়েছেন তিনি। ২০২১ সালেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ঘরের মাটিতে তিনি তার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি করেন। ২০২১ পিএসএল মুলতান সুলতান্সের অধিনায়্কের দায়িত্ব পালন করেন রিজওয়ান। তার অধীনে প্রথমবারের মতো, পিএসএলের শিরোপা জেতে মুলতান।

২০২১ সালে, আন্তর্জাতিক টি টোয়েন্টি ক্রিকেটে মোহাম্মদ রিজওয়ান ২৯ ম্যাচে ৭৩.৬৬ গড়ে ১৩২৬ রান করেন। যেখানে, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ঘরের মাটিতে ১টি টোয়েন্টি সেঞ্চুরিও রয়েছে। ২০২১ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও তৃতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন রিজওয়ান।

মোহাম্মদ রিজওয়ানঃ আন্ডারডগ থেকে সুপারস্টার হওয়ার এক হার না মানা গল্প
আইসিউতে মোহাম্মদ রিজওয়ান

সে বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সেমিফাইনাল ম্যাচের আগে চরম শারীরিক অসুস্থতায় পড়েন রিজওয়ান। যার কারণে, আইসিইউতে ভর্তিও হতে হয় রিজওয়ানকে। রিজওয়ানের শারীরিক অবস্থা দেখে ডাক্তার তাকে, সেমিফাইনালে না খেলার জন্য বললেও ডাক্তারের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সেমিফাইনালে অংশগ্রহণ করের রিজওয়ান।

টি টোয়েন্টি ক্রিকেটের এমন অসাধারণ পারফর্মেন্সের কারণে, ২০২১  আইসিসি বর্ষসেরা টি টোয়েন্টি ক্রিকেটারের পুরষ্কার জেতেন রিজওয়ান।

একটা সময় সমালোচকরা রিজওয়ানকে নিয়ে বলতো, তিনি ছক্কা মারতে পারেন না এবং এ কথাটি রিজওয়ান নিজেই একটি প্রেস কনফারেন্সে বলেছিলেন ২০২০ পিএসএলে করাচি কিংসের হয়ে খেলার সময়। ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বাজে সময়ও তিনি হাল ছাড়েননি বরং, চোখ চোখ রেখে লড়ে গিয়েছেন এবং  ব্যাট হাতে তার বাহারি সব স্ট্রোক ও ধারাবাহিকতার মাধ্যমে সব সমালোচনারই জবাব দিয়েছেন।

আরও পড়ুন:

মিলখা সিং [ Milkha Singh ], দ্যা ফ্লায়িং শিখ [ The Flying Sikh ]

“মোহাম্মদ রিজওয়ান [ Mohammad Rizwan ] আন্ডারডগ থেকে সুপারস্টার হওয়ার এক হার না মানা গল্প”-এ 2-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন