স্বর্নালী কেশের ঘূর্ণি যাদুকর – শেন ওয়ার্ন

স্বর্নালী কেশের ঘূর্ণি যাদুকর – শেন ওয়ার্ন : শেন ওয়ার্ন , নামটি আমাদের মনে এনে দেয় নস্টালজিয়ার এক রোমাঞ্চকর অনুভূতি। ৯০ দশকের প্রত্যেক ক্রিকেটপ্রেমীর মুখে মুখে থাকা এক নাম, শেন-ওয়ার্ন। ওয়ার্নের মতো বিশ্ব ক্রিকেটকে এতো ডমিনেট এখন পর্যন্ত কোনো লেগ স্পিনার করেননি। অস্ট্রেলিয়ার পেস বোলিং সহায়ক পিচ গুলোতে একজন লেগ স্পিনার হয়েও ওয়ার্ন নিয়েছেন  উইকেটের পর উইকেট। এমনকি অস্ট্রেলিয়ার হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হলেন ওয়ার্ন।

তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে শুরুর পথটা মোটেও সুখকর ছিলো না ওয়ার্নের জন্য। ১৯৯২ সালে ভারতের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক হয় তার। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটাঙ্গনে প্রবেশ করার পূর্বে ওয়ার্ন মাত্র ৭ টি প্রথম শ্রেনীর ম্যাচ খেলেছিলেন। ভারতের বিপক্ষে সেই অভিষেক টেস্টে দুই ইনিংস মিলিয়ে মাত্র ২২৮ রান খরচ করে মাত্র ১ টি উইকেট নেন ওয়ার্ন। যার কারণে, ভারতের বিপক্ষে সিরিজের পঞ্চম টেস্টে সুযোগ হয়নি তার।

শেন ওয়ার্নঃ স্বর্নালী কেশের এক ঘূর্ণি যাদুকর
মাইক গ্যাটিংকে আউট করার পর শেন ওয়ার্ন

ভারত সিরিজের পরে, শ্রীলঙ্কা সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসেও বল হাতে তিনি ছিলেন ম্লান। তবে, সে ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসে কোনো রান না দিয়ে ৩ উইকেট শিকার করে অস্ট্রেলিয়াকে ম্যাচটি জেতান ওয়ার্ন। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পরের সিরিজের বাকি ২ ম্যাচে তেমন ওয়ার্ন তেমন ভালো পারফর্মেন্স দেখাতে না পারার কারণে উইন্ডিজের বিপক্ষে পরের টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে দলে ছিলেন না তিনি।

তবে, সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসে উইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচজয়ী ৭ উইকেট নেন তিনি। এরপর, থেকে ওয়ার্নকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।

[ শেন ওয়ার্ন : স্বর্নালী কেশের ঘূর্ণি যাদুকর ]

এরপর, ১৯৯৩ অ্যাশেজ সিরিজে , অস্ট্রেলিয়ার হয়ে খেলে সে সিরিজের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হন শেন ওয়ার্ন। সে সিরিজেই ইংলিশ ব্যাটার মাইক গ্যাটিংকে ঐতিহাসিক ” বল অব দ্যা সেঞ্চুরি” করে আউট করেন। ১৯৯৩ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বমোট ৭১টি উইকেট নিয়ে এক বছরে একজন স্পিনার হয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারের রেকর্ড করেন শেন-ওয়ার্ন।

১৯৯৪ অ্যাশেজেও শেন ওয়ার্ন ২৭টি উইকেট নিয়ে বরাবরের মতো ইংল্যান্ড ব্যাটিং লাইনআপে ধস নামিয়ে দেন। সে অ্যাশেজে শেন-ওয়ার্ন তার আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম এবং শেষ হ্যাটট্রিক করেন। ১৯৯৬ ক্রিকেট বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া দলের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন ওয়ার্ন।

সে বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে তিনি মোট ১২টি উইকেট লাভ করেন। সে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে তার ম্যাচ উইনিং ৪/৩৬ এর স্পেলে অস্ট্রেলিয়া উইন্ডিজকে হারিয়ে বিশ্বকাপের ফাইনালে ওঠে। তবে, সে বিশ্বকাপের ফাইনালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কোনো উইকেট পাননি ওয়ার্ন। সে বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে বিশ্বকাপ ট্রফি হাতছাড়া হয় অস্ট্রেলিয়ার।

শেন ওয়ার্নঃ স্বর্নালী কেশের এক ঘূর্ণি যাদুকর
১৯৯৬ বিশ্বকাপ ফাইনালে শেন ওয়ার্ন

বিশ্বকাপ পরবর্তী উইন্ডিজ ,দক্ষিণ আফ্রিকা এবং অ্যাশেজ সিরিজেও শেন ওয়ার্ন ধারবাহিকভাবে অসাধারণ বোলিংয়ের প্রদর্শন করতে থাকেন। এ তিনি সিরিজে তিনি মোট ৫৭টি উইকেট নেন।

১৯৯৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে শেন ওয়ার্ন সে টুর্নামেন্টের যৌথ সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি ছিলেন। সে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে এবং ফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে শেন-ওয়ার্ন , উভয় ম্যাচেই ৪টি করে উইকেট নেন। সে বিশ্বকাপে শেন-ওয়ার্ন মোট ২০টি উইকেট নেন।

শেন ওয়ার্নঃ স্বর্নালী কেশের এক ঘূর্ণি যাদুকর
১৯৯৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ ফাইনালে শেন ওয়ার্ন

২০০০ সালে ইঞ্জুরির কারণে , অস্ট্রেলিয়ার পুরো ক্রিকেট সামার থেকেই ছিটকে যান ওয়ার্ন। তবে, ২০০১ সালে নিউজিল্যান্ড এবং দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজে ধীরে ধীরে নিজের হারানো বোলিং ফর্ম ফিরে পেতে থাকেন শেন ওয়ার্ন।

২০০৩ সালে, নিষিদ্ধ ড্রাগ সেবনের দায়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হন তিনি এবং সেই নিষেধাজ্ঞা ছিলো ২০০৩ ক্রিকেট বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার ১ দিন পূর্বে। এ বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার আগে তিনি অবশ্য ঘোষণা দিয়েছিলেন যে বিশ্বকাপের পরই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিবেন তিনি।

২০০৪ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পুনরায় প্রত্যাবর্তন হয় শেন-ওয়ার্নের। ২০০৫ সালে, ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অ্যাশেজ সিরিজে আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেটে ৬০০ উইকেট নেয়ার মাইলফলক স্পর্শ করেন শেন-ওয়ার্ন। ২০০৬ অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত অ্যাশেজ সিরিজ খেলার পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরে যান ওয়ার্ন। তবে, এরপর অবশ্য ঘরোয়া ক্রিকেট চালিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি।

২০০৮ সালে, আইপিএলের দল রাজস্থান রয়্যালসের কোচ এবং অধিনায়কের দায়িত্ব একসাথে পালন করেন ওয়ার্ন। তার অধীনে আইপিএল ২০০৮ এর শিরোপা জেতে রাজস্থান। আইপিএল ছাড়াও, ২০১৩ পর্যন্ত বিগ ব্যাশ ক্রিকেট খেলেছেন শেন ওয়ার্ন। এরপর, কমেন্ট্রিতে যুক্ত হন তিনি।

শেন ওয়ার্নঃ স্বর্নালী কেশের এক ঘূর্ণি যাদুকর
রাজস্থানের জার্সি গায়ে শেন ওয়ার্ন

আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ক্রিকেটে শেন ওয়ার্ন ১৯৪ ম্যাচ খেলে নিয়েছেন ২৯৩ টি উইকেট এবং আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেটে ১৪৫টি ম্যাচ খেলে নিয়েছেন ৭০৮টি উইকেট।

সম্প্রতি, থাইল্যান্ডের একটি ভিলায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান এই ক্রিকেট কিংবদন্তি। শেন-ওয়ার্ন শুধু একটি নাম নয় বরং, একটি আবেগের নাম। নিজের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটীয় ক্যারিয়ারে শেন ওয়ার্ন বেশিরভাগ সময় অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ইংল্যান্ডের মতো পেস বোলিং ফ্রেন্ডলি পিচে খেলেও নিজেকে একজন লেগস্পিন কিংবদন্তি হিসেবে রুপান্তর করেছেন। ওয়ার্ন চলে যাননি, তিনি বেচে থাকবেন যুগের পর যুগ শতকোটি ক্রিকেট ভক্তের হৃদয়ে।

আরও পড়ুন:

নারী ক্রিকেট বিশ্বকাপের আদ্যোপান্ত

“স্বর্নালী কেশের ঘূর্ণি যাদুকর – শেন ওয়ার্ন”-এ 2-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন